১৪ লিটার দুধে ২৬ লিটার পানি মিশিয়ে বিক্রি, বিক্রেতাকে জরিমানা

এ’বা’র ল’ক্ষ্মী’পু’রে’র রা’ম’গ’ঞ্জে ১৪ ‘লিটা’র দু’ধে’র স’ঙ্গে ২৬ লি’টা’র পা’নি মি’শি’য়ে বি’ক্রি’র স’ম’য় জ’গ’ৎপু’র ই’মি ডে’ই’রি ফা’র্মে’র ক’র্ম’চা’রি ফা’রু’ক হো’সে’ন’কে জ’রি’মা’না ক’রে’ছে’ন ভ্রা’ম্য’মা’ণ আ’দা’ল’ত। গ’ত’কা’ল সো’ম’বা’র রা’ত ৮টা’য় রা’ম’গ’ঞ্জ থা’না’র পি’ছ’নে

ও’য়া’ব’দা স’ড়’কে’র চৌ’রা’স্তায় ভে’জা’ল দু’ধ বি’ক্রি ক’র’তে গে’লে জ’ন’তা’র হা’তে আ’ট’ক হ’য় দু’ধ বি’ক্রে’তা ফা’রু’ক হো’সে’ন।এ’র’প’র সাং’বা’দি’কে’র উ’প’স্থি’তি’তে রা’ম’গ’ঞ্জ পৌ’র সে’নে’টা’রী ই’ন্স’পে’ক্ট’র আ’ল’ম’গী’র’ হো’সে’ন, উ’প’জে’লা প্রা’ণী স’ম্প’দ ক’র্ম’ক’র্তা

রা”কি’বু’ল হা’সা’ন ও উ’প’জে’লা নি’র্বা’হী অ’ফি’সা’র উ’ম্মে হা’বী’বা মী’রা এ’সে দু’ধ’গু’লো প’রি’ক্ষা নি’রী’ক্ষা ক’রে দে’খে’ন, দু’ধে’র ম’ধ্যে প্রা’য় ৯০% পা’নি মি’শা’নে হ’য়ে’ছে।এ স’ম’য়’ দু’ধে পা’নি মি’শি’য়ে বি’ক্রি’র দা’য়ে বি’ক্রে’তা ফা’রু’ক’কে ১ হা’জা’র টা’কা জ’রি’মা’না ক’রে’ন

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মে হাবীবা মীরা। পরে পানি মিশ্রিত দুধগুলো পার্শ্ববর্তী মোহাম্মদিয়া এতিমখানায় দিয়ে দেন তিনি।এদিকে ভেজাল দুধ বিক্রেতা ফারুক হোসেন বলেন, আমি জগৎপুর ইমি ডেইরি ফার্মে চাকুরি করি। ফার্মের মালিক

বাচ্চু মিয়া আমাকে প্রতিদিন সন্ধ্যায় ৪০ লিটার দুধ দেয়। আমি সেগুলো ৫০, ৬০,৭০ টাকা দরে এখানে বিক্রি করি। এই খামার থেকে প্রতিদিন ২৫০ থেকে ৩০০ লিটার দুধ পুরো রামগঞ্জে বিক্রি করা হয়। আজকে ১৪ লিটার দুধে ২৬ লিটার পানি

মিশানো হয়েছে বলে ফারুক জানিয়েছে।এ সময় কয়েকজন ক্রেতা জানান, আমরা যখন এখান থেকে দুধ ক্রয় করি তখন বাড়িতে গিয়ে দেখি দুধের অধিকাংশই পানি। আমাদের মনে সন্দেহ থাকার কারনে সাংবাদিক এবং স্থানীয় ব্যবসায়ীদের

সহযোগিতায় তাকে পানি মিশানো ভেজাল দুধসহ আটক করি। এসময় উপস্থিত সাংবাদিকবৃন্দ উর্দ্ধতন কতৃপক্ষকে বিষয়টি অবিহিত করেন।জগৎপুর ইমি ডেইরি ফার্মের মালিক বাচ্চু মিয়া বলেন, মানুষ ৩০-৪০ টাকা দিয়ে দুধ কিনে। দুধে পানি

মেশাবোনাতো কি মেশাবো। রামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উম্মে হাবীবা মীরা বলেন, দুধে পানি মিশিয়ে বিক্রির দায়ে বিক্রেতা ফারুককে ১হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। তাকে সতর্ক করে দেয়া হয়েছে। পরবর্তীতে একই অপরাধে জড়ালে তাকে কারাদণ্ড দেয়া হবে।