শেষ সম্বল হারিয়ে কাঁদছেন শত-শত ব্যবসায়ী

ম’হা’মা’রী’র কা’র’ণে গ’ত ক’য়ে’ক ব’ছ’র ঈ’দে ভা’লো ব্য’ব’সা ক’র’তে পা’রে’ন’নি রা’জ’ধা’নী’র ব’ঙ্গ’বা’জা’রে’র ব্য’ব’সা’য়ী’রা। আ’শা ছি’ল গ’ত ক’য়ে’ক ব’ছ’রে’র লো’ক’সা’ন এ’বা’র পু’ষি’য়ে নে’ও’য়া’র। কি’ন্তু বি’ধি বা’ম! ম’ঙ্গ’ল’বা’র ভো’রে মা’র্কে’টে লা’গা আ’গু’ন তা’দে’র সে’ই

স্ব’প্ন দুঃস্ব’প্নে প’রি’ণ’ত ক’রে’ছে। দা’উ দা’উ আ’গু’নে পু’ড়’ছে ব্য’ব’সা’য়ী’দে’র ঈ’দে’র স্ব’প্ন।ব্য’ব’সা’য়ী’রা ব’ল’ছে’ন, ব’ঙ্গ’বা’জা’র’ই দে’শে’র স’ব থে’কে ব’ড় পা’ই’কা’রি কা’প’ড়ে’র মা’র্কে’ট। ঈ’দ’কে কে’ন্দ্র ক’রে রো’জা শু’রু’র প’র থে’কে’ই ধী’রে ধী’রে জ’মে ও’ঠে এ মা’র্কে’টে’র

ব্যবসা। এ বছরও জমতে শুরু করেছিল বঙ্গবাজারের কেনাবেচা। কিন্তু হঠাৎ লাগা আগুন সব কেড়ে নিয়েছে ব্যবসায়ীদের।ইমরান নামে এক ব্যবসায়ী জানান, শুধু তিনি নন তাদের পরিবার এবং আত্মীয়-স্বজনদের এখানে বেশ কয়েকটি দোকান

রয়েছে। ঈদ উপলক্ষ্যে তারা দোকানে নতুন মালামাল তুলেছেন। এজন্য কেউ-কেউ ধার-দেনাও করেছেন। কিন্তু আগুনের লেলিহান শিখায় পুড়ছে ঈদ কেন্দ্রিক তাদের এ স্বপ্ন। ব্যবসায়ী ইমরান জানান, তার শ্বশুর আগুন লাগার খবর পেয়ে স্ট্রোক করেছেন। তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। শুধু ইমরান নন, তার মতো শত-শত ব্যবসায়ী শেষ সম্বল হারিয়ে কাঁদছেন।