রোজাদারদের উচিত লুকিয়ে হলেও পানি পান করা: তসলিমা

এ’ই প্র’চ’ন্ড গ’র’মে রো’জা’দা’র’দে’কে লু’কি’য়ে হ’লে’ও পা’নি পা’ন ক’রা উ’চি’ৎ, এ’ম’ন স্ট্যা’টা’স দি’য়ে’ছে’ন বি’ত’র্’কি’ত লে’খি’কা ত’স’লি’মা না’স’রি’ন। গ’ত’কা’ল র’বি’বা’র ১৬ এ’প্রি’ল নি’জে’র ভে’রি’ফা’য়ে’ড ফে’স’বু’ক পে’জে এ’ক পো’স্টে তি’নি এ’ম’ন’টা লি’খে’ছে’ন।

সে’ই পো’স্ট’টি হু’ব’হু তু’লে ধ’রা হ’লো- ‘প্’র’চ’ন্ড ‘গ’র’মে রো’জা রা’খ’ছে’ন যাঁ’রা, তাঁ’রা পা’নি পা’ন ক’র’তে পা’র’ছে’ন না, কা’র’ণ এ’তে না’কি রো’জা’ ভে’ঙ্গে যা’বে, রো’জা ভে’ঙ্গে গে’লে স’ও’য়া’ব বা নে’ক ক’মে যা’বে, বে’হে’স্’ত’বা’স ফ’স’কে যা’বে। ‘বে’হে’স্’ত ‘ব্যা’পা’র’টা

অ’বা’স্’ত’ব প’র’কা’লে’র ‘ক’ল্’প’না। কি’ন্তু ই’হ’কা’লে ডি’হা’ই’ড্’রে’শা’নে’র কা’র’ণে না’না স’ম’স্’যা’য় ভু’গ’ছে মা’নু’ষ।রো’জা’দা’র’দে’র উ’চি’ত পা’নি’ পা’ন ক’রা। লু’কি’য়ে হ’লে’ও পা’ন ক’রা। ‘আ’ল্’লা’হ স’ব’কি’ছু দে’খে’ন তা ঠি’ক ন’য়। নি’জে স’ব দে’খ’তে পে’লে এ’ত ফে’রে’স্’তা’কে নি’য়ো’গ

ক’র’তে’ন না স’ব’কি’ছু দে’খ’তে এ’বং স’ব’কি’ছু’র হি’সে’ব ‘পত্র’ রা’খ’তে।আ’মি স’র্ব’শ’ক্’তি’মা’ন হ’লে আ’মা’কে’ তু’ষ্ট রা’খা’র জ’ন্য রো’জা’ রা’খা’র কো’ন’ও সি’স্টে’মে”র ‘অ’নু’ম’তি মা”নু’ষ’কে দি’তা’ম ‘না। ‘নি’র্’জ’লা উ’প’বা’সে’র তো প্র’শ্ন’ই ও’ঠে না। আ’ন’ফ’র’চু’নে”ট’লি আ’মি ম’হা’ন

সৃষ্টিকর্তা নই, সে কারণে সৃষ্টির প্রতি আমার সহানুভূতি আর সহমর্মিতার কোনও মূল্য এই সমাজে নেই।যেহেতু সৃষ্টিকর্তা নিজের গুণগান শুনতে ব্যস্ত, তাঁর সময় নেই গ্রীষ্মের দাবদাহে রোজাদারদের কী হাল হচ্ছে তা দেখার, তাঁকে

অনুরোধ করবো, তিনি যেন তাঁর রোজা সিস্টেমে পরিবর্তন আনেন। তিনি যেন তাঁর প্রিয় বান্দাদের রোজা রাখা অবস্থায় পানি পান করার অনুমতি দেন এবং পান করার পর বান্দাদের সওয়াবের স্কোর নিয়ে কোনও ঝামেলা না পাকান। আমিন।’