রিজওয়ান-মঈন আলী-হাশিম আমলার থেকেও বেশি নিজেকে ইসলামী সুন্নাহ গড়ে প্রশংসা কুড়াচ্ছেন মুশফিক

জনপ্রিয় ক্রিকেট মাঠে খেলোয়াড়দের নামাজ আদায় করার দৃশ্য এখন আর নতুন ঘটনা নয়। আন্তর্জাতিক ম্যাচ থেকে শুরু করে ঘরোয়া ম্যাচেও বিষয়টি এখন নিয়মিত দেখা যায়। ধর্মীয় দায়িত্ব পালনে ক্রিকেটারদের মধ্যেও এর হারটা বেড়েছে।

বিশেষ করে পাকিস্তানের ক্রিকেটাররা এখানে অনেক এগিয়ে। বাংলাদেশের বেশ কিছু ক্রিকেটার নিয়মিত নামজ আদায় করে থাকেন।বিশেষ করে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মুশফিকুর রহিম খেলার মাঠে নামাজ আদায় করে ক্রিকেটপ্রেমীদের হৃদয়ে

সাড়া ফেলেছেন।পেসার তাসকিন আহমেদ ও শরিফুল ইসলামরা এখন নিয়মিত নামাজ আদায় করে থাকেন। আর বাংলাদেশ দল দেশের বাইরে সফরে গেলে এই দৃশ্য বেশি চোঁখে পড়ে। সবশেষ ঘরের মাঠে বিপিএলে পাকিস্তনের ক্রিকেটারদের সাথে

বিসিবির একাডেমির মাঠে অনুশীলনের ফাঁকে নিয়মিত নামাজ আদায় করতে দেখা যায়।তবে সবার চেয়ে আরও আলাদা মুশফিকুর রহিম। নামাজের জন্য কোন অজুহাত নেই। নামাজের সময় হলেই মাথায় টুপি পড়নে ও জুব্বা পড়ে নামাজ আদায়

করেন। সবশেষ গত শুক্রবার সিলেটে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে অনুশীলন শেষে টুপি ও জুব্বা পড়ে দৌড়ে টিম বাসে উঠতে দেখা যায় মুসফিকুর রহিমকে।তার উদ্দেশ্য, মসজিদে গিয়ে শুক্রবার জুমার নামাজ আদায়। এ ঘটনায় অভিজ্ঞ এই

ক্রিকেটার, ভক্তদের কাছে প্রশংসায় ভাসছেন। এক ভক্ত টুইটারে লেখেন, বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সেরা ক্রিকেটার মুশফিকুর রহিম তার জীবনকে সুন্নাহ অনুযায়ী সাজানোর চেষ্টা করছেন।’ইতিমধ্যে মুখে লম্বা দাঁড়িও রেখেছেন

তিনি। অবশ্য অভিজ্ঞ মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এই পথে হাঁটছেন। বিদেশিদের মধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকার হাশিম আমলা, ইংল্যান্ডের মঈন আলী ছাড়াও পাকিস্তানের ক্রিকেটাররা ক্রিকেট খেলার সাথে নিজেকে ইসলামী সুন্নাহ গড়ে প্রশংসা কুড়িয়েছেন ইসলামপ্রিয় মানুষের।