মৌসুমীর মৃত্যুর পর ছবি ডিলিট প্রসঙ্গে এবার মুখ খুললেন আজহারী

বাং’লা চ’ল’চ্চি’ত্রে এ’ক’জ’ন জ’ন’প্রি’য় মু’খ চি’ত্র’না’য়ি’কা মৌ’সু’মী। স’ম্প্র’তি তি’নি ঘো’ষ’ণা দি’য়ে ব’লে’ছে’ন, মা’রা গে’লে তা’র লা’শ যে’ন কে’উ না দে’খে এ’বং তা’র ‘ছ’বি যে’ন স’বা’ই ডি’লি’ট ক’রে দে’য়।না’য়ি’কা’র সে’ই ব’ক্ত’ব্য নি’য়ে মি’শ্র প্র’তি’ক্রি’য়া’র’ সৃ’ষ্টি হ’য়ে’ছে সা’মা’জি’ক

যো’গা’যো’গ মা’ধ্য’মে। এ’বা’র এ’ই ই’স্যু’তে মু’খ খু’লে’ছে’ন ই’স’লা’মি’ক গ’বে’ষ’ক ও আ’লো’চি’ত ধ’র্মী’য় ব’ক্তা মি’জা’নু’র র’হ’মা’ন আ’জ’হা’রী। শু’ক্র’বা’র (৮ এ’প্রি’ল) ই’স’লা’মে’র রা’স্তা না’মে’র এ’ক’টি ই’উ’টি’উ’ব চ্যা’নে’লে মৌ’সু’মী প্র’স’ঙ্গে ক’থা ব’লে’ন ‘তি’নি।

মৌ’সু’মী’র না’ম উ’ল্লে’খ না ক’রে মি’জা’নু’র র’হ’মা’ন আ’জ’হা’রী ব’লে’ন, ‘স’ম্প্র’তি বাং’লা’দে’শে এ’ক চি’ত্রনা’য়ি’কা’র আ’কু’তি’র ক’থা শু’নে’ছি। তি’নি ব’লে’ছে’ন- আ’মা’র মৃ’ত্যু’র প’র আ’মা’র সি’নে’মা, ভি’ডি’ও’গু’লো ডি’লি’ট ক’রে দে’বে’ন। সা’রা’জী’ব’ন পা”পের

পথে চলে, পাপের কর্মকাণ্ডে জড়িত থেকে শেষ জীবনে এটা বললে কি আসলে ডিলিট হয়।’‘এ সোশ্যাল মিডিয়ার জগতে নিরঙ্কুশ স্বাধীনতা বলে কিছুই নেই। আমি চাইলেই কি সব কিছু ডিলিট করতে পারব। তাই আমরা শেষ সময়ে না বুঝে,

শালীনতার পথে, সত্যের পথে, কল্যাণের পথে এখন থেকেই যেন থাকি। সময় চলে যাওয়ার পর যেন আমরা না বুঝি।’‘আমাদের চিত্রনায়িকা যে বোন এ আকুতি পেশ করেছেন, আসলে কি তার পক্ষে গোটাবিশ্বে দর্শক-শ্রোতাদের কাছে তার মুভি,

ভিডিওগুলোর যে সিন আছে, সেগুলো কি আসলে ডিলিট করা সম্ভব। দেখা যাবে, মৃত্যুর পরও সেগুলো চলতে থাকবে।’অন্য চিত্রনায়িকাদের উদ্দেশ্যে আজহারী বলেন, ‘এ বোনের কথা শুনে, রুপালি পর্দার অন্যান্য বোনেরা, আমরাও যেন

একটু উপলব্ধি করি, আমরা কোন পথে হাঁটছি। আমার কাজ, ক্যারিয়ার কি আল্লাহর সন্তুষ্টির পথে আছে? এটা দিয়ে কি আসলে গণমানুষের কল্যাণ হচ্ছে। নাকি অশ্লীলতার দিকে ধাবিত হচ্ছি। একটু চিন্তা করি আমরা। একটু চিন্তা করি আমাদের

লাইফস্টাইল সম্পর্কে।’‘মানুষের হৃদয়ে একটি নুর থাকে আর কুরআন একটি নুর। দুই নুর একত্রিত হলে আলোকিত হবে। প্রত্যেকের মধ্যে সেই সত্য আছে। একটু চিন্তা করলেই বেরিয়ে আসবে। সঠিক উত্তর পেয়ে যাবেন। চলচ্চিত্র জগতের পথটা

কেমন। তবে শালীনভাবে কোনো কিছু উপস্থাপন করলে ভিন্নকথা। অশ্লীলতার দিকে ধাবিত করে এমন চলচ্চিত্র, এগুলোর জন্য আমরা কি জবাব রেডি করেছি।’মৌসুমীর সে স্ট্যাটাস নিয়ে আজহারী বলেন, ‘আমার যে বোন সোশ্যাল মিডিয়াতে

যে আকুতি পেশ করেছেন, তার লাশ যেন কাউকে না দেখানো হয়। মৃত্যুর পর যেন ভিডিও ডিলিট করে দেওয়া হয়। তার (মৌসুমী) দিকে খেয়াল করে অন্যান্য বোন তাদের লাইফস্টাইল নিয়ে একটু ভেবে দেখবেন। আমাদের দেশের অনেক বোনকে

দেখেছি এবং ভারত ও পশ্চিমা বিশ্বের অনেক বোনকে দেখেছি, তারা সঠিক পথে ফিরে এসেছেন। অশ্লীলতার পথ থেকে ফিরে এসেছেন।’এর আগে মৌসুমীর লাশ না দেখার আকুতি নিয়ে কথা বলেছেন বিশিষ্ট আলেম শায়খ আহমাদুল্লাহ। এছাড়া মৌসুমীর হজ করা নিয়ে কথা বলেছেন পরিচালক মালেক আফসারী।