বিশ্বকাপের পরে প্রথম বারের মত যে শক্তিশালী একাদশ নিয়ে মাঠে নামছে আর্জেন্টিনা

গতব ছরের ডিসেম্বর ১৮ তারিখে ফ্রান্সের বিপক্ষে ফাইনাল খেলা বিশ্বকাপ শেষ করেছিল আর্জেন্টিনা ফুটবল দল। সেই বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়ন হয় মেসি-দিবালার আর্জেন্টিনা। এরপর থেকে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনাসহ অন্যান্য দেশের

খেলোয়াড়রা ক্লাবের খেলায় দারুন ব্যস্ত সময় পার করছেন।তবে কাতার বিশ্বকাপে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের আবারও মাঠে দেখতে অধির আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করছে আলবিসেলেস্তা সমর্থকরা। ইতোমধ্যে তাদের প্রথম

মাচের প্রতিপক্ষ ঘোষণা করা হয়েছিল। তবে এর মধ্যে এলো আরেক ম্যাচের তথ্য। মার্চে দুটি ম্যাচে মাঠে নামছেন লিওনেল মেসিরা।গতকাল ০২ মাতছ বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে আর্জেন্টিনা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন (এএফএ)আসন্ন

দুই ম্যাচের প্রতিপক্ষ ও সময়-সূচি জানিয়েছে। ম্যাচ দুটিতেই তারা বিশ্বকাপের একাদশ নিয়ে নামার ইঙ্গিত দিয়েছে দেশটির গণমাধ্যমগুলো।দেশের মাঠে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া আর্জেন্টিনার প্রথম ম্যাচ হবে ২৩ মার্চ। সেই ম্যাচে তারা পানামাকে

আতিথ্য দেবে। এর পাঁচদিন পরেই দ্বিতীয় ম্যাচে নামবেন মেসিরা। ২৮ মার্চ তারা খেলবে কিরাকাওয়ের বিপক্ষে।বিবৃতিতে বলা হয়, পানামার বিপক্ষে প্রথম ম্যাচটি হবে এল মনুমেন্তালে মাঠে। অপর ম্যাচে কিরাকাওয়ের বিপক্ষে মেসিরা এল

মনুমেন্তালে মাঠে নামবেন।এর আগে টিওয়াইসি স্পোর্টসের প্রতিবেদনে মেসিদের প্রথম দুই ম্যাচের প্রতিপক্ষ হিসেবে পানামা ও সুরিনামের কথা বলা হয়েছিল। পরবর্তীতে তাদের দ্বিতীয় ম্যাচের প্রতিপক্ষে বদল আনা হয়েছে। তিনদিন আগেই

বিশ্বজয়ী কোচ লিওনেল স্কালোনির সঙ্গে ২০২৬ বিশ্বকাপ পর্যন্ত চুক্তি নবায়ন করে দেশটির ফুটবল ফেডারেশন। এরপরই ম্যাচ দুটির প্রতিপক্ষ ও সূচি ঘোষণা করেছে দলটি।গত ১৮ ডিসেম্বর ফাইনালে ফ্রান্সকে টাইব্রেকারে হারিয়ে তৃতীয়বারের মতো

বিশ্বকাপ জেতে আর্জেন্টিনা। এর মাধ্যমে সাড়ে তিন দশকের বিশ্বসেরার খেতাব জয়ের আক্ষেপ ঘুচেন মেসিরা। স্কালোনির শিষ্যরা সেই টুর্নামেন্ট সফলতার রেশ এখনো টেনে নিয়ে যাচ্ছেন। তারা ফিফার দ্য বেস্ট অ্যাওয়ার্ডে ৮ ক্যাটাগরির মধ্যে ৪টিই নিজেদের দখলে নিয়েছেন।