বহুল প্রতিক্ষার পর সবাইকে অবাক করে আসন্ন টি-২০ বিশ্বকাপের আয়োজন করতে যাচ্ছে বাংলাদেশে

২০২৪ সালের মহিলা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ আগামী বছর বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত হতে চলেছে। আটটি দল সরাসরি এই মেগা ইভেন্টে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছে। তবে, শ্রীলঙ্কা এবং
আয়ারল্যান্ড ২০২৪ সালের আইসিসি মহিলা টি-টোয়েন্টি

বিশ্বকাপের জন্য সরাসরি যোগ্যতা অর্জন করতে পারেনি। মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি) নিশ্চিত করেছে যে বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া আইসিসি মহিলা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ২০২৪-এর জন্য স্বয়ংক্রিয় বাছাইপর্ব

হিসেবে আটটি দলকে চিহ্নিত করা হয়েছে। বাছাই প্রক্রিয়া অনুসারে, প্রতিটি গ্রুপের শীর্ষ তিনটি দল সরাসরি স্বাগতিকদের সঙ্গে যোগ্যতা অর্জন করবে এবং ১০ টিম টুর্নামেন্টের ছয়টি সরাসরি বাছাইপর্বের মধ্যে সর্বোচ্চ র‍্যাঙ্কড দল। অস্ট্রেলিয়া,

নিউজিল্যান্ড এবং দক্ষিণ আফ্রিকা হল লিগ পর্বে গ্রুপ ১-এর শীর্ষ তিন দল হিসাবে সরাসরি যোগ্যতা অর্জনকারী দল, যেখানে ইংল্যান্ড, ভারত এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজ সমানভাবে গ্রুপ ২ তে জায়গা করে নেবে। বাংলাদেশ টুর্নামেন্টের নবম

মরশুমের আয়োজক হিসেবে যোগ্যতা অর্জন করেছে, যেখানে পাকিস্তান ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ তারিখে আইসিসি মহিলা টি-টোয়েন্টি টিম র‍্যাঙ্কিংয়ে পরবর্তী সর্বোচ্চ র‌্যাঙ্কিংয়ে জায়গা করে নিয়েছে। বাকি দুটি স্পট আগামী বছরের শুরুতে

অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া বৈশ্বিক বাছাইপর্বের মাধ্যমে নির্ধারণ করা হবে। এবারের টুর্নামেন্টে খেলা দলগুলোর মধ্যে শ্রীলঙ্কা ও আয়ারল্যান্ডই দুটি দল যারা সরাসরি যোগ্যতা অর্জন করতে পারেনি। শ্রীলঙ্কা বর্তমানে র‌্যাঙ্কিংয়ে অষ্টম স্থানে রয়েছে,

আর আয়ারল্যান্ড দশম স্থানে রয়েছে।এদিকে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ১৯ রানে হারিয়ে মহিলা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ২০২৩ শিরোপা জিতেছে অস্ট্রেলিয়া। অস্ট্রেলিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকার মহিলা খেলোয়াড়রা অসাধারণ খেলা দেখিয়েছেন। আইসিসি

র‌্যাঙ্কিংয়ে এর সুফল পেয়েছেন এই খেলোয়াড়রা। র‌্যাঙ্কিংয়ে প্রাধান্য পেয়েছে অস্ট্রেলিয়ান খেলোয়াড়রা। অস্ট্রেলিয়ার ফাস্ট বোলার ডার্সি ব্রাউন মহিলা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ২০২৩-এ দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করেছিলেন। আইসিসি র‌্যাঙ্কিংয়ে

এর সুফল পেয়েছেন তিনি। তিন নম্বরে পৌঁছেছেন ব্রাউন। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারতের বিপক্ষে ৪ ওভারে ১৮ রানে ২ উইকেট নিয়েছিলেন তিনি। তিনি ইন-ফর্ম জেমিমার উইকেট তুলে নেন, যা ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দিয়েছিল। এছাড়া ফাইনাল

ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে চার ওভারে ২৫ রান দিয়ে ১ উইকেট নিয়েছিলেন তিনি।টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভালো পারফরম্যান্সের পুরস্কার পেয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার ফাস্ট বোলার শাবনিম ইসমাইল। ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ফাইনালে ২/২৬ এবং

সেমিফাইনালে ৩/২৭ নেওয়ার পর তিনি সাত নম্বরে উঠে এসেছেন। তার ৭০ রেটিং পয়েন্ট রয়েছে। ইংল্যান্ডের স্পিনার সোফি একলেস্টোন ১১টি উইকেট নিয়ে মহিলা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে এক নম্বর বোলার হয়েছেন। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে

ব্যাট হাতে দুর্দান্ত খেলা দেখিয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার লরা ওলভার্ড। তিনটি দুর্দান্ত হাফ সেঞ্চুরি করেছিলেন তিনি। এখন মহিলা টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ে ছয় নম্বরে উঠেছেন তিনি। ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে সেমিফাইনালে স্বাগতিকদের একটি অত্যাশ্চর্য

৫৩ রানের জয় নিবন্ধনে সাহায্য করার পর, প্রাণঘাতী ব্যাটসম্যান ফাইনালে ৪৮ বলে ৬১ রান করে স্বাগতিকদের আশা জাগিয়ে তোলেন। ব্যাটিং র‌্যাঙ্কিংয়ে ৩২ বছর বয়সী তানজামিন ব্রিটস নয় ধাপ লাফিয়ে ১২তম স্থানে উঠেছেন। সতীর্থ বেথ মুনির

চেয়ে শীর্ষস্থানে রয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার পাওয়ার-হিটার তাহলিয়া ম্যাকগ্রা। অ্যাশলে গার্ডনার ২১ বলে ২৯ রান করার পর অলরাউন্ডারদের র‌্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষে রয়েছেন।