বড় সুখবর, সেই ৩৭ হাজার প্রাথমিক শিক্ষকের জন্য

ব’ড় সু’খ’ব’র, সে’ই ৩৭ হা’জা’র প্রা’থ’মি’ক শি’ক্ষ’কে’র জ’ন্য। চ’ল’তি ব’ছ’রে’র ২৩ জা’নু’য়া’রি যোগ’দা’নে’র প’র থে’কে বে’ত’ন-ভা’তা’ পা’ন’নি প্রা’থ’মি’ক ও প্রা’ক-প্রাথ’মি’কে’র ৩৭ হা”জা’র শি’ক্ষ’ক। আ’ড়া’ই মা’স প’র ঈ’দে’র আ’গে’ই ‘তা’দে’র বেত’ন-ভা’তা দে’ও’য়া

হ’বে ব’লে জা’নিয়ে’ছে’ন প্রা’থমি’ক ও গণ’শি’ক্ষা ম’ন্ত্র’ণা’লয়।’সোম’বা’র (১০ এ’প্রিল) দু’পু’রে এ ত’থ্য নি’শ্চি’ত ক’রে’ন প্রা’থমি’ক ও গণ’শি’ক্ষা ম”ণাল’য়ে’র ‘সচি’ব ফ’রি’দ আহা’ম্ম’দ।এ বি’ষ’য়ে তি’নি ব’লে’ন, ন’তুন’ যে ৩৭ হা’জা’র শি’ক্ষ’ক নি’য়ো’গ পে’য়ে’ছে’ন, এর’ম’ধ্যে

আমাদের প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের (ডিপিই) প্রভিশন অনুযায়ী পিডিবি-৪ এর দুইভাবে বেতন পাওয়ার কথা। ২৬ হাজারের কাছাকাছি যাদের বেতন, তারা পাবেন পিডিবি-৪ এর প্রকল্প থেকে। আর বাকিরা পাবেন রাজস্ব থেকে।

‘এভাবে নিয়োগপত্রে ডিপিই দলিল অনুসারে আমরা শর্ত আরোপ করেছিলাম। আগে শিক্ষকদের বেতন-ভাতা আইবাসের মাধ্যমে হতো না, এখন যেহেতু আইবাস প্লাস প্লাসে গিয়েছে, সে কারণে অর্থ মন্ত্রণালয় বলেছে যে যেহেতু তারা রাজস্ব

খাতের নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষক। আর ডিপিই-তে বলা আছে, প্রকল্প চলাকালীন প্রকল্প খাত থেকে পাবেন, তারপর রাজস্বতে যাবেন, এতে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছিল‍,’ যোগ করেন সচিব।তিনি আরও বলেন, ‘আইবাস প্লাস প্লাসের সঙ্গে এটি খাপ খায়নি।

এ কারণে ২৬ হাজার বেতন যাদের, তাদের ক্ষেত্রে একটু জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে। এ নিয়ে গতকাল (রোববার) আমাদের অর্থ মন্ত্রণালয় বিশেষ সভা ডেকেছিল, গতকাল বিষয়টি নিয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে। এখন আর তারা প্রকল্প থেকে পাবেন না।

সবাই রাজস্ব খাত থেকে পাবেন। আইবাস প্লাস প্লাসের সঙ্গে খাপ খাইয়ে এটি করা হয়েছে।’এ প্রক্রিয়াটি করতে সর্বোচ্চ তিন থেকে পাঁচ দিন সময় লাগবে। অর্থাৎ ঈদের আগেই সবাই রাজস্ব খাত থেকে বেতন পাবেন বলে জানালেন ফরিদ আহাম্মদ।

সরকারি কর্মচারীদের বেতন-ভাতা নির্ধারণে সফটওয়্যার ইন্টিগ্রেটেড বাজেট অ্যান্ড অ্যাকাউন্টিং সিস্টেম (আইবাস++)। চলতি বছর দেশের ইতিহাসের সর্ববৃহৎ সার্কুলারে একবারে প্রায় সাড়ে ৩৭ হাজার শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয়।