জঘন্য অভিযোগে ক্রিকেটার আল আমিনের বিরুদ্ধে চার্জশিট, বিপিএল চলাকালেই যেতে হতে পারে কারাগারে

এবার যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে নির্যাতন, মারধর ও বাসা থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হওয়ায় বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের পেসার আল আমিন হোসেনের বিরুদ্ধে চার্জশিট (অভিযোগপত্র) দাখিল

করেছে পুলিশ। নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের ১১-এর গ ধারায় অভিযোগ প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হওয়ায় এ চার্জশিট দাখিল করা হয়।আজ বৃহস্পতিবার ২ ফেব্রুয়ারি ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আতাউল্লাহর আদালতে এ চার্জশিট

দাখিল করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মিরপুর মডেল থানার পরিদর্শক সোহেল রানা। এদিন আল আমিন হাজিরা দেন। আদালদ চার্জশিটে স্বাক্ষর করেন। এরপর মামলাটির পরবর্তী বিচারের জন্য ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল

-৮-এ বদলির আদেশ দেন।এর আগে, এ ঘটনায় গত ২ সেপ্টেম্বর ক্রিকেটার আল আমিনের বিরুদ্ধে তার স্ত্রী ইসরাত জাহান মিরপুর মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার অভিযোগে বলা হয়, ২০১২ সালের ২৬ ডিসেম্বর পারিবারিক

ভাবে ক্রিকেটার আল আমিন হোসেনের সঙ্গে ইসরাত জাহানের বিয়ে হয়।এ দম্পতির দুই সন্তান রয়েছে। বিয়ের পর থেকে এ পর্যন্ত সংসারকালে পারিবারিক বিষয় নিয়ে আল আমিন তার স্ত্রী ইসরাতের কাছে ফ্ল্যাটের মূল্য পরিশোধ বাবদ ২০

লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন।এদিকে ইসরাতের বৃদ্ধ বাবা যৌতুকের টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে আল আমিন তাকে মারধর করে বাসা থেকে বের করে দেন। বেশ কয়েকবার মারধরের পর তিনি (ইসরাত) আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের প্রস্তুতি

নেন। কিন্তু পরে পারিবারিকভাবে আপস-মীমাংসা করেন। এরপরও আল আমিন তার ওপর অত্যাচারসহ শারীরিক নির্যাতন অব্যাহত রাখেন।মামলার অভিযোগে আরও উল্লেখ করা হয়, গত ২৫ আগস্ট আল আমিন তার স্ত্রীর কাছে যৌতুকের দাবি

করা টাকা নিয়ে বাগবিতণ্ডায় জড়ান। স্ত্রী টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে তাকে এলোপাতাড়ি কিল, ঘুষি ও লাথি মেরে শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম করেন। পরে ইসরাতের চাচা তাকে সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে

প্রাথমিক চিকিৎসা করান। চিকিৎসা শেষে বাসায় ফিরলে আল আমিন তার সঙ্গে আগের মতো আচরণ করতে থাকেন।এদিকে মামলায় ৫ সেপ্টেম্বর হাইকোর্টে আগাম জামিন আবেদন করেন আল আমিন। পরদিন হাইকোর্টের বিচারপতি মো.

রেজাউল হাসান ও বিচারপতি মো. আতাবুল্লাহর সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ তার আট সপ্তাহের আগাম জামিন মঞ্জুর করেন।আট সপ্তাহ পর তাকে ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে আত্মসমর্পণ করতে বলেন আদালত।

গত ১ নভেম্বর হাইকোর্টের দেওয়া জামিনের মেয়াদ শেষ হওয়ায় ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল ৮ নম্বর আদালতে আইনজীবীর মাধ্যমে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করলে বিচারক তা মঞ্জুর করেন।