ক্রিকেটে বরাবরই এক আতঙ্কের নাম মাশরাফি, ৫ উইকেট নিয়ে মোহামেডানকে ধসিয়ে দিলেনে এই টাইগার কিংবদন্তি !!

ঘরোয়া ক্রিকেটে বরাবরই এক আতঙ্কের নাম মাশরাফি বিন মুর্তজা। ৩৯ বছর বয়সেও অসাধারণ বোলিং করে চলেছেন তিনি। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে তার দুর্দান্ত বোলিংয়ের সামনে মাত্র ৮০ রানে অলআউট হয়েছে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব।

আর সাবেক চ্যাম্পিয়নদের অল্পতে থামাতে মাত্র ৮.৪ ওভার বোলিং করে তিনটি মেডেনসহ মাত্র ১৭ রান দিয়ে ৫ উইকেট নিয়েছেন এই পেসার। তার দারুণ বোলিংয়ের পর পারভেজ হোসেন ইমনের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে দশ উইকেটের বড় জয়

পেয়েছে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ।আগের ম্যাচেই শাইনপুকুরের বিপক্ষে ৩ উইকেট নিয়েছিলেন মাশরাফি। এবার মোহামেডানকে পেয়ে আরও বেশি জ্বলে উঠেন এই পেসার। স্বীকৃত ওয়ানডে ক্রিকেটে ৪৫০ উইকেটও পেয়ে গেলেন মাশরাফি।

৫০ ওভারের ম্যাচে মোহামেডান খেলতে পেরেছে কেবল ২২.৪ ওভার। মাহিদুল ইসলাম অংকনকে ফিরিয়ে মোহামেডানকে প্রথমে চাপে ফেলেন চিরাগ জানি। যদিও সত্যিকারের ধ্বংসযজ্ঞ শুরু হয় মাশরাফি বোলিংয়ে আসার পর।

তার বলে প্রথমে ফিরে যান মোহামেডানের অধিনায়ক ইমরুল কায়েস। বোল্ড হওয়ার আগে ৩২ বলে ১১ রান করেন তিনি। এরপর দলটির ভারতীয় রিক্রুট অনুষ্টুপ মজুমদারকেও (৭) বোল্ড করেন মাশরাফি। পরের তিন উইকেট যেন চোখের

পলকে নিয়ে নেন লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের এই অধিনায়ক।শুভাগত হোম (৩), এনামুল জুনিয়র (০) ও খালেদ আহমেদকে (৪) ফেরান তিনি। তার গুডলেংথের করা বল ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টে ক্যাচ তুলে দেন শুভাগত। যা লুফে নেন ইমন।

এনামুল উইকেটের পেছনে ইরফান শুক্কুরকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন।আর খালেদ আহমেদ ফাইন লেগে মোক্তার আলীকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন। ৫ উইকেট নেয়ার পাশাপাশি দুটি দারুণ ক্যাচও লুফে নেন মাশরাফি। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এবং

কামরুল ইসলাম রাব্বির ক্যাচ তালুবন্দী করেন তিনি।মোহামেডানের হয়ে মাত্র দুজন ব্যাটারই দুই অঙ্ক স্পর্শ করতে পেরেছেন। ইমরুল ছাড়া দুই অঙ্কে পৌঁছেছেন কেবল সৌম্য সরকার। ওয়ানডাউনে নেমে ২৬ বলে ৮টি চারে ৪১ রান করেন

সৌম্য। তার উইকেটটি নেন সোহাগ গাজী।লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে মাত্র ৮.২ ওভার খেলেছে রূপগঞ্জ। মুনিম শাহরিয়ার ২৯ বলে ৩০ রান তুলে অপরাজিত থাকেন। দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দিতে ২১ বলে ৪৪ রান তোলেন ইমন। ইনিংসে

ছিল চারটি চার ও চারটি ছক্কার মার।মোহামেডানের শনির দশা কাটছে না মোটেও। এই ম্যাচের আগে আরও তিনটি ম্যাচ হেরেছে দলটি। আর একটি ম্যাচ বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হয়েছে।