‘ঈদের দিন’ ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার সুপার ক্লাসিকো

ফু’ট’ব’লে’র দু’ই প’রা’শ’ক্তি ব্রা’জি’ল ও আ’র্জে’ন্”টি’না। লা’তি’ন আ’মে’রি’কা’র এ’ই দ’ল দু’টি য’দি মু’খো’মু’খি হ’য়, তা’হ’লে তো ক’থা’ই নে’ই! হো’ক সে’টা জা’তী’য় দ’ল কিং’বা ব’য়’স’ভি’ত্তি’ক। ম্যা’চে’র প’র’তে প”র’তে থা’কে উ’ত্তে’জ’না আ’র রো’মা’ঞ্’চের ছ’ড়া’ছ’ড়ি।

ই’কু’য়ে’ড’রে ব’সে’ছে অ’নূ’র্ধ্ব-১৭ দ’ক্ষি’ণ আ’মে’রি’কা’ন চ্যা’ম্পি’য়’ন’শি’পে’র ১৯ত’ম ‘আ’স’র। টু’র্না’মে’ন্’টি’তে প্র’তি’বা’রে’র ম’তো এ’বা’রে’র আ’স’রে’ও অং’শ নি’য়ে’ছে ১০টি ‘দ’ল। ‘যে’খা’ন থে’কে পাঁ’চ’টি ক’রে দ’ল দু’ই গ্রু’পে ভা’গ হ’য়ে খে’লে’ছে গ্রু’প প’র্বে’র ম্যা’চ। গ্রু’প ‘এ’

ও গ্রু’প ‘বি’ থে’কে সে’রা ছ’য়’টি দ’ল উ’ঠে’ছে ফা’ই’না’ল রা’উ’ন্’ডে। গ্রু’প এ থে’কে ব্রা’জি’ল, চি’লি, ই’কু’য়ে’ড’র এ’বং গ্রুপ বি থে’কে আ’র্জে’ন্’টিন, প্’যা’রা’গু’য়ে ও ভে’নে’জু’য়ে’লা’। ফা’ই’না’ল রা’উ’ন্ড ‘নি’শ্’চিত ক’রা ছ’য়’টি দ’ল’ই এ’কে অ’প’রে’র মু’ু’খো’মু’খি হ’চ্ছে।

প্রতি’টি’ দলে’র’ থা’ক’ছে পাঁ’চ’টি ক’রে ম্যা’চ। ‘ই’তো’ম’ধ্যে ‘তি’ন’টি ক’রে ম্যা’চ খে’লে ফে’লে’ছে দ’ল’গু’লো। ‘এ’র ম’ধ্যে প্র’তি’টি দ’ল’ই খে’লে’ছে’ তি’ন’টি ক’রে ম্যা’চ।স্বা’গ’তি’ক ই’কু’য়ে’ড’র তি’ন ম্যা’চে’র ‘দু’ই’টি’তে জ’য় ও এ’ক’টি’তে ড্র’ হ’রে’ গো’ল ব্য’ব’ধা’নে এ’গি’য়ে থে’কে

রয়েছে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে। দ্বিতীয় স্থানে আর্জেন্টিনা। আলবিসেলেস্তে জুনিয়ররাও দুই জয় ও এক ড্রয়ে ৭ পয়েন্ট নিয়ে রয়েছে দুইয়ে।ইকুয়েডর-আর্জেন্টিনার মতোই ব্রাজিলের পয়েন্ট সাত। দুই জয়ের বিপরিতে তারাও ড্র করেছে একটি ম্যাচ।

তবে গোল ব্যবধানে পিছিয়ে থেকে রয়েছে তৃতীয় স্থানে। ভেনেজুয়েলার জয় একটিতে, হেরেছে দুইটি। রয়েছে টেবিলের চতুর্থ স্থানে। এছাড়া চিলি ও প্যারাগুয়ে এখন পর্যন্ত জয়ের দেখা পায়নি। অনূর্ধ্ব-১৭ দক্ষিণ আমেরিকান চ্যাম্পিয়নশিপের

নিয়ম অনুযায়ী পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থাকা দল হবে চ্যাম্পিয়ন। আর দ্বিতীয় স্থানে থাকা দল হবে রানার্সআপ। বাকি চার দলের মধ্যে যথায়ক্রমে তৃতীয়, চতুর্থ, পঞ্চম ও ষষ্ঠ স্থান নির্ধারণ হবে। ফাইনাল রাউন্ডের শেষ দিন মুখোমুখি হবে চিরপ্রতিদ্বন্দী

ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা। আগামী ২৩ এপ্রিল রোববার বাংলাদেশে ঈদের দিন (সম্ভবত) ভোর ৬টায় শুরু হবে ম্যাচটি। দুই দলেরই এটি হবে শেষ ম্যাচ।উল্লেখ্য, এটি অনূর্ধ্ব-১৭ দক্ষিণ আমেরিকান চ্যাম্পিয়নশিপের ১৯তম আসর। করোনার কারণে

একটি আসর পিছিয়ে যায়। তবে আয়োজক দেশের ক্ষেত্রে কোনো পরিবর্তন আনেনি কর্তপক্ষ। টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ ১২ বারের চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল। আর আর্জেন্টিনার ঘরে রয়েছে ৪টি শিরোপা। এছাড়া বলিভিয়া ও কলম্বিয়া একবার করে চ্যাম্পিয়ন হয়।