ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ জিতে বাংলাদেশকে নিয়ে বিশাল সুখবর দিল সাকিব

তিন ম্যাচ টি-২০ সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচে গতকাল মাঠে নেমেছিল বাংলাদেশ এবং ইংল্যান্ড। এই ম্যাচে ১৬ রানে জয় নিয়ে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রতিটি ম্যাচ জিতে নেন বাংলাদেশ। যার ফলে বাংলাদেশীরা ঘরের মাঠে

ইংল্যান্ডকে হোয়াইটওয়াশ করে ছাড়ে।গতকাল এই ম্যাচে মুস্তাফিজুর রহমানের লেংথ ডেলিভারিতে পয়েন্টে ঠেলে দিয়ে এক রান নিতে চাইলেন ইংল্যান্ডের ব্যাটার বেন ডাকেট। বাঁহাতি এই ব্যাটারের ডাকে সাড়া দিলেন ইংল্যান্ড দলের অধিনায়ক

উইকেট কিপার ব্যাটসম্যানজস জস বাটলারও।তবে দৌড়ে এসে বাংলাদেশী অলরাউন্ডার মেহেদি হাসান মিরাজের সরাসরি থ্রো আঘাত করে স্টাম্পে। রান আউট হয়ে ফিরলেন বাটলার, প্রায় ৫০ মিটার দৌড়ে শহীদ জুয়েল স্ট্যান্ডের দিকে এসে

উদযাপন করলেন এই অলরাউন্ডার মিরাজ। উল্লাসে ফেটে পড়ল মিরপুর আর পুরো বাংলাদেশ।রংলিশ বাহিনির বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে বাংলাদেশ কতটা ভালো ফিল্ডিং করেছে সেটার উৎকৃষ্ট উদাহরণ হতে পারে মিরাজের এমন রান আউট। শুধু

এটিই নয় পুরো সিরিজেই দেখা মিলেছে বাংলাদেশের নজর কাড়া ফিল্ডিং। ইংল্যান্ডকে টি-টোয়েন্টিতে হোয়াইটওয়াশ করার পর সাকিব জানালেন, তাদের লক্ষ্য এশিয়ার সেরা ফিল্ডিং দল হওয়া।ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে সাকিব বলেন, ‘অবশ্যই!

এটা (সিরিজে বাংলাদেশের ফিল্ডিং) সাধারণ যে কোনো মানুষেরই চোখে পড়েছে। তিন ম্যাচেই যে ধরনের ফিল্ডিং আমরা করেছি। ইংল্যান্ড এত ভাল ফিল্ডিং দল। আমার মনে হয়, আমরা তাদের থেকে ভালো ফিল্ডিং করেছি। সেই জায়গা থেকে অনেক

বড় একটা টিক মার্ক।’‘আমি যদি সবকিছু বিবেচনায় রাখি, আমাদের সবচেয়ে বড় উন্নতি হয়েছে ফিল্ডিংয়ে। যেটা আমাদের সবসময়ই করা উচিত। আমাদের দলের অন্তত পরিকল্পনা আছে, আমরা যেন ফিল্ডিংয়ে এশিয়ার সেরা দল হতে পারি। আমার

মনে হয় না, আমরা খুব বেশি দূরে আছি। এই দলটা সম্ভবত এশিয়ার সেরা ফিল্ডিং দল।’ইংল্যান্ডের বিপক্ষে পুরো টি-টোয়েন্টি সিরিজে দাপট দেখিয়েছে বাংলাদেশ। ব্যাট হাতে দারুণ সিরিজ কাটিয়েছেন নাজমুল হোসেন শান্ত। বোলিংয়ে তাসকিন আহমেদ,

হাসান মাহমুদ, মুস্তাফিজুর রহমানরাও ছিলেন আপ টু দ্য মার্ক। বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক পারফরম্যান্স বিবেচনা করতে গিয়ে সাকিব জানান, সবাই অসাধারণ করেছে।সাকিব বলেন, ‘আমি ব্যক্তিগত কোনো খেলোয়াড় নিয়ে বলতে চাই না।

সবাই অসাধারণ খেলছে। যার যার জায়গা থেকে অবদান রাখা দরকার ছিল, করেছে। দুয়েকজন হয়তো যতটা আমরা সবসময় ভাবি খেলবে, এতটা একটা দল সবসময় খেলে না। যারা ভালো খেলছে, আমি প্রত্যাশা করছি তারা যতদিন সম্ভব ভালো

খেলতে থাকুক। যারা হয়তো এত ভালো অবদান রাখতে পারিনি, তারা যদি ১০-১৫শতাংশ বেশি রাখতে পারে; তাহলে আমরা আরও ভালো দল হবো।’