আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপজয়ী গোলকিপারকে তাড়িয়ে দিতে ব্যস্ত হয়ে উঠেছে তার ইপিএলের ক্লাব! কিন্তু কেন?

আর্জেন্টিনার বিশ্বজয়ী গোলকিপার ও বিশ্বকাপ জয়ের অন্যতম নায়ক এমিলিয়ানো মার্টিনেজকে তাড়াতে হঠাৎই সক্রিয় উঠেছে তাঁর ইংলিশ ক্লাব অ্যাস্টন ভিলা।জানা গিয়েছে, বিশ্বকাপ জয়ের পর থেকে বিভিন্ন বিতর্কে জড়িয়ে পড়া এই গোলকিপারকে

রাখতে চাইছেন না কোচ উনাই এমেরি। জানুয়ারিতে ট্রান্সফার উইন্ডো শুরু হলেই তাঁকে বিক্রি করে দেওয়া হতে পারে। এমন খবরই প্রকাশ্যে এনেছে ইউরোপের ফুটবলে ট্রান্সফার সংক্রান্ত খবরের সবচেয়ে বড় সংস্থা ‘ফিকাজেস’।

তারা জানিয়েছে, আর কয়েক দিন পরেই ট্রান্সফার উইন্ডো শুরু হবে। সেখানেই মার্তিনেজকে বিক্রি করে দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। মার্তিনেসের মেজাজ এবং আচার-আচরণ নিয়ে একেবারেই সন্তুষ্ট নন এমেরি। তাঁকে দল থেকে বের করে

দিতে চান। সেভিয়ার ইয়াসিন বুনুকে নেওয়ার চেষ্টা চলছে। বিশ্বকাপে গোলকিপারদের মধ্যে মার্তিনেজ এবং ক্রোয়েশিয়ার ডমিনিক লিভাকোভিচের পাশাপাশি নজর কেড়েছিলেন বুনুও।ফিকাজেস বলেছে, “ক্লাব এবং মার্তিনেজের

বিচ্ছেদ কার্যত সম্পূর্ণ। কোচ নিজেই দায়িত্ব নিয়েছেন যাতে যত দ্রুত সম্ভব মার্তিনেজকে দল থেকে সরিয়ে দেওয়া যায়।”এই খবর চমকে দেওয়ার মতোই। কারণ, শনিবারই জানা গিয়েছিল এমেরি নিজে মার্তিনেজের সঙ্গে কথা বলে তাঁর

আচরণ সংযত করার চেষ্টা করবেন। কারণ, বিশ্বকাপ জেতার পর থেকে মার্তিনেসকে নিয়ে বিতর্ক থামছেই না।সোনার গ্লাভসের পুরস্কার নিয়ে তাঁর কুৎসিত অঙ্গভঙ্গিই হোক বা পুতুলের মুখে কিলিয়ান এমবাপের মুখোশ পরানো, বিভিন্ন কারণে

তিনি এসেছেন শিরোনামে। ভবিষ্যতে ক্লাবের হয়ে যাতে কোনও বিতর্কে জড়িয়ে না পড়েন, তার জন্য আগেভাগেই তাঁকে সতর্ক করে দিতে চেয়েছিলেন এমেরি। না মানলে ভবিষ্যতে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে বলে ক্লাব সূত্রের খবর ছিল।

ইপিএলের ক্লাব অ্যাস্টন ভিলাতে বছর দুয়েক খেলছেন মার্তিনেজ। এমেরি তাঁর সম্পর্কে বলেছিলেন, “ওর আবেগ খুব বেশি, মাঝেসাঝে তা নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হয়ে যায়। সামনের সপ্তাহে ও ফিরলে কথা বলব। কিছু উচ্ছ্বাস যে নিয়ন্ত্রণে

রাখতে হয় সেটা ওকে বোঝাব। এখন ও জাতীয় দলের হয়ে খেলছে। কিন্তু ক্লাবে যোগ দিলে ওর দায়িত্ব আমাদেরও। তার পরে ওর সঙ্গে এটা নিয়ে কথা বলব। ওকে নিয়ে আমরা গর্বিত। জাতীয় দলের হয়ে বিশ্বকাপ জেতা সাধারণ ব্যাপার নয়।”তার পরেই জানা গেল, খোদ এমেরিই মার্তিনেজকে রাখতে চাইছেন না!