অবাক হওয়ার কিছুই নেই, একটি পুরস্কার এখনো পাওয়া হয়নি মেসির

হেডলাইন দেখে নিশ্চয়ই অবাক হচ্ছেন। যার খেলোয়াড়ি জীবনে আর কোনো অপূর্ণতা নেই। তাকে নিয়ে এমন হেডিং বিস্ময়কর লাগতেই পারে। ক্যারিয়ারে সবকিছুই অর্জন করেছেন, শুধু বাকি ছিল একটি ফুটবল বিশ্বকাপ ট্রফি। সেটাও তো

পেয়ে গেলেন ফুটবলের রাজপুত্র। তাহলে আর কিই বা বাকি আছে?হ্যাঁ সত্যিই এখনো একটি পুরস্কার অধরাই রয়ে গেছে মেসির। জাতীয় দল ও ক্লাব পর্যায়ে দুবার গোল্ডেন বল জিতলেও ‘গোল্ডেন ফুট’ তার জেতা হয়নি।

মর্যাদার দিক থেকে শীর্ষ কিছু না হওয়াতেই হয়তো ‘গোল্ডেন ফুট’ নিয়ে আলোচনা হয় কম। তবে বিশ্ব ফুটবলে গত দুই দশকের প্রায় সব সেরা খেলোয়াড়ই এরই মধ্যে পুরস্কারটি জিতে নিয়েছেন। বাকি আছেন আর্জেন্টাইন তারকা।

মোনাকোর প্রিন্স দ্বিতীয় আলবার্টের পৃষ্ঠপোষকতায় গোল্ডেন ফুট পুরস্কার চালু হয় ২০০৩ সালে। পুরস্কারটি পাওয়ার শর্ত হচ্ছে জাতীয় দল ও ক্লাব পর্যায়ে অনবদ্য অবদান এবং বয়স কমপক্ষে ২৮ বছর। নির্বাচিত সাংবাদিকদের একটি দল

মনোনীত ১০ ফুটবলারের মধ্য থেকে একজনকে বর্ষসেরা হিসেবে বেছে নেন।তবে কোনো ফুটবলার একবারের বেশি গোল্ডেন ফুটের জন্য বিবেচিত হন না। পুরস্কারজয়ী খেলোয়াড়টির পায়ের ছাপ বিশেষভাবে সংরক্ষণ করা হয়।সাতবার ব্যালন

ডি’অর জয় করা মেসি ৬ বছর ধরেই গোল্ডেন ফুটের জন্য বিবেচিত হওয়ার যোগ্য। বয়স ২৮ পার করে ফেলা বর্তমান ফুটবলারদের মধ্যে করিম বেনজেমা আর ভার্জিল ফন ডাইকরাও এখনো গোল্ডেন ফুট পাননি।গত বুধবার রাতে মোনাকোয়

আয়োজিত অনুষ্ঠানে ২০২২ গোল্ডেন ফুট জিতেছেন পোল্যান্ডের বার্সেলোনা ফরোয়ার্ড রবার্ট লেভানডভস্কি। এর আগে ২০২১ সালে মোহাম্মদ সালাহ এবং ২০২০ সালে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো পুরস্কারটি জিতেছিলেন।

এখন পর্যন্ত যারা জিতেছেন গোল্ডেন ফুট:

রবার্তো ব্যাজিও (২০০৩), পাভেল নেদভেদ (২০০৪), আন্দ্রেই শেভচেঙ্কো (২০০৫), রোনালদো নাজারিও (২০০৬), আলেসান্দ্রো দেল পিয়েরো (২০০৭), রবার্তো কার্লোস (২০০৭), রোনালদিনিয়ো (২০০৯), ফ্রান্সিসকো টট্টি (২০১০), রায়ান গিগস (২০১১), জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচ (২০১২), দিদিয়ের দ্রগবা (২০১৩), আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা (২০১৪), স্যামুয়েল ইতো (২০১৫), জিয়ানলুইজি বুফন (২০১৬), ইকার ক্যাসিয়াস (২০১৭), এদিনসন কাভানি (২০১৮), লুকা মদরিচ (২০১৯), ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো (২০২০), মোহাম্মদ সালাহ (২০২১), রবার্ট লেভানডভস্কি (২০২২)।