অপরিকল্পিত বোলিং, লিটনকে বসিয়ে গুরবাজে ভরসা! ম্যাচ হেরে যা বললেন বিরক্ত নীতিশ

শু’ক্র’বা’র ই’ডে’ন গা’র্ডে’নে চ’ল’তি আ’ই’পি’এ’লে ঘ’রে’র মা’ঠে তা’দে’র দ্বি’তী’য় ম্যা’চ খে’ল’তে নে’মে’ছি’ল ক’ল’কা’তা না’ই’ট রা’ই’ডা’র্স। ঘ’রে’র মা’ঠে দ্বি’তী’য় ম্যা’চে সা’ন’রা’ই’জা’র্স হা’য়’দ’রা’বা’দে’র বি’রু’দ্ধে ল’ড়া’ই ক’রে’ও হা’র’তে হ’ল‌ তা’দে’র।ম্যা’চে প্র’থ’মে ব্যা’ট ক’রে হ্যা’রি ব্রু’কে’র

দু’র্দা’ন্ত ‘শ’ত’রা’নে ভ’র ক’রে ২২৮ রা’নে’র বি’রা’ট স্কো’র খা’ড়া ক’রে হা’য়’দ’রা’বা’দ। ‘জ’বা’বে রা’ন তা’ড়া ক’রে ২’০’৫’ ‘রা’নে’ই আ’ট’কে যে’তে হ’য় না’ই’ট’দে’র। ফ’লে ২৩ রা’নে ম্যা’চ হা’র’তে’ হ’য় কে’কে’আ’র’কে।ম্যা’চ’ হা’রে’র প’রে কা’র্য’ত দ’লে’র বো’লা’র’দে’র’কেই ঘু’রি’য়ে

এ’ক’ হা’ত নি’য়ে’ছে’ন কে’কে’আ’র অ’ধি’না’য়’ক নী’তি’শ রা’না।তাঁ’র ম’তে, ‘ই’ডে’নে’র উ’ই’কে’ট ২৩০ ‘রা’নে’র উ’ই’কে’ট ছি’ল না।প’রি’ক’ল্’প’না’ অ’নু’যা’য়ী’ বো’লিং’ হ’য়’নি ব’লে’ই ২৩’০’ রা’ন’ উ’ঠে’ছে। পা’শা’পা’শি’ তিনি’ এ’টা জা’না’তে’ও ভো’লে’ন’নি যে, রি’ঙ্কু ‘সিং রোজ’ রো’জ

(‘গু’জ’রা’ট ম্’যা’চে পাঁ’চ ব’লে পাঁ’চ ছ’ক্কা ‘হাঁ’কি’য়ে জি’তি’য়ে’ছিলে’ন ‘রি’ঙ্কু) তা’দের’ উদ্’ধার ক’র’বে’ন না!ম্যা’চ শে’ষে নী’তি’শ ‘রা’না’ সো’জা’সা’প্’টা ব’লে দে’ন, ‘’আ’মি’ ম’নে ক’রি ম্’যাচে যে ‘ভা’বে আ’ম’রা বো’লিং’ ক’রে’ছি, তা আ’মা’দে’র প’রি’ক’ল্’পনা ‘অ’নু’যা’য়ী’ এ’কে’বা’রে’ই হ’য়’নি।

উইকেট কি ছিল বা ছিল না তা নিয়ে আমি মন্তব্য করব না। তবে এটা বলব কোনও ভাবেই এই উইকেটটা ২৩০ রানের উইকেট ছিল না। গত দিন রিঙ্কু যে ইনিংসটা খেলেছিল তা রোজ রোজ হবে না। তবে আমরা যথেষ্ট ভালো ব্যাট করেছি।

ম্যাচকে আমরা যতটা গভীরে সম্ভব নিয়ে যেতে চেয়েছি। আর সেটা হল ওই ভাবে নির্দিষ্ট করে বলা যেত না, কে জিতবে বা জিতবে না! হোম অ্যাডভান্টেজ আমি ছেড়েই দিলাম। কারণ আমরা জানি, ইডেনের এই ২২ গজ কী ভাবে খেলে।

আমরা আশা করেছিলাম এখানে ২০০ রান একটা ভালো স্কোর হবে। সেই ভাবেই গোটা দল প্রস্তুতও হয়েছিল। আমাদের বোলিংটা আরও ভালো হওয়া প্রয়োজন রয়েছে।’এদিন প্রথমে ব্যাট করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ২২৮ রান করে

সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। ৫৫ বলে অনবদ্য ১০০ রান করে অপরাজিত থাকেন হ্যারি ব্রুক।তাঁর ইনিংস সাজানো ছিল ১২ টি চার এবং তিনটি ছয়ে। তাঁকে যোগ্য সঙ্গত দিয়ে অধিনায়ক এডেন মার্করাম ৫০ এবং অভিষেক শর্মা ৩২ রান করেন।

জবাবে রান তাড়া করতে নেমে সাত উইকেট হারিয়ে ২০৫ রানেই আটকে যায় কেকেআর। অধিনায়ক নীতিশ রানা ৪১ বলে ৭৫ রানের একটি অনবদ্য ইনিংস খেলেন। তাঁর ইনিংসে ছিল ৫ টি চার এবং ছ’টি ছয়।

এ ছাড়াও গুজরাট ম্যাচের নায়ক রিঙ্কু সিং ৩১ বলে ৫৮ রান করে অপরাজিত থেকে যান। তবে গুজরাট টাইটান্স ম্যাচের মত এ দিন অবিশ্বাস্য কোনও ঘটনা তিনি ঘটাতে পারেননি।